Class 6 Hinduism Assignment 7th week & Answer 2021

Class Six Hinduism Assignment 1th week published by DSHE. Class 6 hindu dhromo Assignment Somadhan. ষষ্ঠ শ্রেণীর হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা প্রথম সপ্তাহের সমাধান। Hinduism  2nd Assignment Answer & Solution 1th week. 1th/Fifth week assignment Question and Solution is available Upodesh.com. Hindu dhrormo protect Hindu religion and moral education in 5th/Fifth week Class six/6. So we help you to Solve 5th week Hinduism Assignment.

Contents

Class Six Hinduism Assignment, 7th week

Our Education system has come to a standstill due to the Covid-19. So educational institutions have closed for a long time and our schools are not able to run education. In this situation not possible to take academic exams in school. In the case of the Government take a decision to start all students of class 6 to 9 assignment from 1st November to 15 December in the option of Annual Examination. Class 6 Assignment 4th Week for Bangla, English, Math, Islam & Moral Studies, Hinduism, Buddhism, Christianity Religion, Information Communication Technology (ICT), Social Science subjects are available here. বাংলা, ইংরেজি, গণিত, ইসলাম ও নৈতিক অধ্যয়ন, হিন্দুধর্ম, বৌদ্ধধর্ম, খ্রিস্টান ধর্ম, তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি), সামাজিক বিজ্ঞানের বিষয়সমূহের জন্য ষষ্ট শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট। ক্লাস সিক্সের প্রথম থেকে ষষ্ঠ সপ্তাহের সকল এসাইনমেন্ট।

Assignment Class Six/6 All Subject Solution

Bangla, English, Math, Islam & Moral Studies, Hinduism, Buddhism, Christianity Religion, Information Communication Technology (ICT), Social Science

Class 9 (Nine) 7th Week Assignment With Answer 2021

Class 8 (Eight) 7th Week Assignment With Answer 2021

Class 7 (Seven) 7th Week Assignment With Answer 2021

Class 6 (Six) 7th Week Assignment With Answer 2021

অনাসক্ত কর্ম সম্পর্কে শ্রীকৃষ্ণের বাণী সমূহ তোমার ব্যক্তি জীবনে কিভাবে প্রয়োগ করবে তার একটি বর্ণনা তুলে ধরো l

উত্তর ঃ

নিস্কাম কর্ম বলতে বুঝায় কর্মের ফলে প্রতি আসক্ত হয়ে কর্ম করে যাওয়া l আসক্তি ত্যাগ করতে হলে, আগে জানতে হবে, আসক্তি কেন জন্ম হয়।

আসক্তির জন্ম হয়, আমিত্ববোধ থেকে। যুগের পর যুগ তপস্যায় কাটিয়ে দেন মদ্যপুরুষরা আত্মপােলব্ধি করার জন্য, এই আমি কে জানার জন্যে। যেখানে আমি র অস্তিত্ব ত্যাগ হয়, জীবন জুড়ে শুধু তিন্ত্রি (ঈশ্বর, আল্লা) বিরাজ করেন, প্রতি মুহুর্তেই শ্বাদু প্রশ্বাসে ও মনে হয় আমি নয়, তিনি করাচ্ছেন সবকিছু, সেখানে সৃষ্টি, আসক্তিঙ্গীনতা৷শ্রীকৃষ্ণ হচ্ছে শ্রী বিষ্ণুর অস্টম অবতার। তিনি সনাতন ধর্মে ভগবানরূপে পূজিত হন। মহাভারতে কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে শ্রীকৃষ্ণ অর্জুনের ব্লখের সারথী ছিলেন। যুদ্ধক্ষেত্রে অর্জুনকে বাঁচাতে তিনি মহান উপদেশ প্রদান করেন। শ্রীকৃষ্ণের মুখনিঃসৃত উপদেশমূই হচ্ছে শ্রীকৃষ্ণের বাণী।

অনাসক্ত কর্ম সম্পর্কে শ্রীকৃষ্ণ বিভিন্ন সময় বিভিন্ন বাণী প্রদান করেছেন যে বাণীগুলাে আমরা আমাদের জীবনে প্রয়ােগ করে আমাদের জীবনকে সঠিক পথে পরিচালিত করতে পারি।আমি যেভাবে শ্রীকৃষ্ণের উক্ত বাণী আমার জীবনে প্রয়ােগ করব তা শ্রীকৃষ্ণের বাণী উল্লেখপূর্বক নিম্নে বর্ণনা করা হলাে। “ফলের আশা ছেড়ে কর্ম করে যাওয়া ব্যাক্তি জীবনে সফল হতে পারে।” এই বাণীটি আমি আমার ব্যাক্তিজীবনে প্রয়ােগ করে আমিও আমার প্রতুিষ্টি কাজে

সফল হতে পারি।সেজন্য আমায় যা করতে হবে তা নিম্নরূপঃ

ভগবান শ্রীকৃষ্ণ তার উপরিউক্ত বাণীতে বুঝাতে। চেয়েছেন যে আমরা যদি ফলের আশা ত্যাগ করে কর্ম করি তবে আমরা সেই কাজে সফল হতে পারব। তাই আমি আমার ব্যাক্তিজীবনে ফলের আশা ত্যাগ করে কর্ম করে যাব। যতক্ষণ পর্যন্তু সফল হচ্ছি ততক্ষণ পর্যন্ত চেষ্টা করে যা কোনােরূপ ফুলের আশা না করে। তবে একদিন নিশ্চই সফলতা আসবে। “প্রত্যেক কাজধৈর্য এবং কৃরূণার সাথে করাে” শ্রীকৃষ্ণের এ বাণীড়িকে আমি যেভাবে আমার ব্যাক্তিজীবনে প্রয়ােগ
পারি তা নিম্নে বর্ণনা করা হলােঃ

উপরিউক্ত বাণীতে ভগবান শ্রীকৃষ্ণ বুঝাতে চেয়েছেন যেকোনাে কাজ করার ক্ষেত্রে ধৈৰ্য্য থাকা বাঞ্চণীয় এবং প্রত্যেকটি কাজ করুণার সাথে করা উচিত। তাই আমি আমার সব কাজ অবশ্যই ধৈর্য্য ও করূণার সাথে করব৷যদি প্রত্যেকটি কাজ ধৈর্য্য ধরে করা হয় তবে সেই কাজে সফল হওয়ার জন্য বিভিন্ন পথ খুলে যায়। সেই সঠিক পথে করুণীর সাথে বার্তা সম্পাদন করতে থাকলে সে কাজে সফলতা আসে।”নিজের কথা না ভেবে কর্ম করলে কর্মের বন্ধন ভেঙে যায়” শ্রীকৃষ্ণের এ বাণীর্টি , আমি যেভাবে আমার ব্যাক্তিজীবনে প্রয়োগ করব তা নিম্নে বর্ণনা।

করা হলােঃ উপরিউক্ত বাণীতে ভগবান শ্রীকৃষ্ণ বুঝাতে চেয়েছেন যেকোনাে কাজ করার ক্ষেত্রে নিজের কথা না ভাবাই উত্তম।তবে সেই কাজের প্রতি কোনাে আসক্তি বা বন্ধন জাবে না। তাই আমি আমার ব্যাক্তিজীবনে কর্ম সম্পাদনের ক্ষেত্রে কখনােই নিজের কথা ভাবব না।অন্যের মঙ্গলের জন্য সর্বদা কর্ম সম্পাদন করে যাব। পরিশেষে এটাই বলা যায় যে, আমাদের ব্যাক্তিজীবনে আমাদের উচিত প্রতিটি কাজে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের বাণী স্মরণ করা কারন তিনি তার বাণীর মাধ্যমে আমাদের সঠিক পথ দেখিয়েছেন। তাই মস্তিষ্কে যেন থাকে কর্ম পরিকল্পনা আর মনে শুধু ভগবান শ্রীকৃষ্ণ।

নির্ধারিত কাজ- ২

অধ্যায় ও বিষয়বস্তুর শিরােনাম

ষষ্ঠ অধ্যায়: ধর্মীয় উপাখ্যানে নৈতিক শিক্ষা

এ্যাসাইনমেন্ট / নির্ধারিত কাজ

ধর্মীয় নৈতিক শিক্ষামূলক যে কাজটি তুমি চর্চা কর (দেশপ্রেম / অধ্যাবসায়) তার বর্ণনায় নিচের বিষয়গুলাে অন্তর্ভুক্ত করে একটি প্রতিবেদন তৈরি কর।

১) কাজের ধারণা

(২) কাজের উদ্দেশ্য

(৩) ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা

(৪) কাজটি করে তােমার অনুভূতি

(৫) কাজের গুরুত্ব

মূল্যায়ন নির্দেশক

(1) কাজের নাম ও তার ধারণা

(২) কাজের উদ্দেশ্যের বর্ণনা

(৩) ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা বর্ণনা

(৪) অনুভূতির বর্ণনা

(৫) কাজের গুরুত্বের বর্ণনা

ষষ্ঠ শ্রেণীর ৫ম সপ্তাহের হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা সমাধানের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। যাহার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের সিলেবাস অনুযায়ী পঞ্চম সপ্তাহের প্রশ্ন ও সমাধানের জন্য অপেক্ষা করছেন তাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই যে আসুন আমাদের ওয়েবসাইটে এবং সেগুলো দেখুন। ষষ্ঠ শ্রেণির পাঠ্য বিষয়গুলোর মধ্যে হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা অন্যতম একটি বিষয়।

এটি হিন্দু শিক্ষার্থীদের প্রেরণা জোগায়। তো যাই হোক আজ আমরা ৫ম সপ্তাহের হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা অ্যাসাইমেন্ট নিয়ে কাজ করবো। নিম্নে হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা অ্যাসাইমেন্টের সমাধান গুলো দেখা হলো।

 হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা

ছোটবেলা থেকেই আমরা বাড়িতে নি নিজ ধর্ম সম্পর্কে কিছুটা ধারণা পাই। তারপর যখন আমরা শিক্ষা জীবনে প্রবেশ করি তখন ধর্ম কি, ধর্ম কি জন্য করতে হয়, ধর্ম আমাদের জীবনে কি কি প্রবাহ ফেলে সে সম্পর্কে জানতে পারি। তবে আমাদের জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত ধর্ম শিক্ষার গুরুত্র্ব অপরিসীম। হিন্দুধর্ম একটি প্রাচীন ধর্ম। হিন্দুধর্মকে অনেকে সনাতন ধর্ম হিসেবে চিনে। ষষ্ঠ শ্রেণির হিন্দুধর্ম পাঠের মাধ্যমে আমরা ধর্ম সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা পাবো পরবর্তী ক্লাসে গেলে আমরা এর বিস্তারিত আলোচনা পাবো। তবে হিন্দুধর্ম সম্পর্কে জানতে হলে আপনাকে অবশ্যই বেদ পড়তে হবে। কারণ বেদ হলো হিন্দুদের আদি ধর্মগ্রস্থ। এছাড়াও হিন্দুধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা পাঠের মাধ্যমে আপনি ঈশ্বরের সৃষ্টি, ঈশ্বেরের লীলা, তার মহিমা, সৃষ্টির সৌন্দর্য, পৃথিবী সৃষ্টির ইতিহাস, বিভিন্ন দেবদেবী, অলৌকিক ঘটনা, ধর্মের পথে চলতে হলে, শিক্ষামূলক ঘটনা, পিতামাতাকে ভক্তি, জীবপ্রেম, পৃথিবীতে মানুষের দায়িত্ব কর্তব্য ইত্যাদি সম্পকে জানতে পারবেন। আমার মতে ধর্ম সবচেয়ে সহজ এবং মজার এটা বিষয়। সেটি সকলেই পছন্দ করে। আর এই বিষযটিতে ভাল নম্বর পাওয়াও খুবই সহজ তাই নিয়মিত ধর্ম চর্চার মাধ্যমে নিজেকে এবং মন বিশুদ্ধ করুন। মনে রাখবেন ঈশ্বর আমাদের সৃষ্টি করেছেন।

প্রতিটি জীবের মধ্যে ঈশ্বর রয়েছেন। তাই তার সৃষ্টির প্রশংসা করতে হবে। ঈশ্বরের গুণকীর্তন করতে হবে। আমরা সর্বদা চেষ্টা করবো পাপ কাজ থেকে বিরত থাকতে। মানুষকে সাহায্য করবো ঈশ্বর বলেছেন তোমরা সৃষ্টিরকে ভালোবাসো তাহলে আমাকে ভালোবাসা হবে। যাই হোক ষষ্ঠ শ্রেণীর  হিন্দু ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা অ্যাসাইমেন্ট এর কাজ চলছে আশা করি আপনারা সবাই সমাধান পাবেন। নিম্নে আমরা সকল প্রশ্নের সমাধান দিয়ে দিয়েছে।

Conclusion

We help you all the time. So stay with us and we hope your good Education. We just want Stay at home and Continue your Education. Stay Safe and Healthy in COVID-19. More Information Join our Facebook Group

https://upodesh.com/

Updated: June 19, 2021 — 11:31 am

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *